যুদ্ধের মেয়েরা ও অন্যান্য গল্প

লেখক: চিনুয়া আচেবে

বিষয়: অনুবাদ, পুরস্কারপ্রাপ্ত

১৪৪.০০ টাকা ২০% ছাড় ১৮০.০০ টাকা

যুদ্ধের মেয়েরা ও অন্যান্য গল্প  বিংশ শতাব্দীর মধ্য পঞ্চাশ থেকে সত্তরের দশকের শুরু অবধি নাইজেরীয় জনজীবনের কাহিনি। গল্পগুলোর রচনাকাল চিনুয়া আচেবের কলেজে পড়ার সময় থেকে নাইজেরীয় গৃহযুদ্ধের শেষ অবধি। এই গল্পসংগ্রহে আচেবে পাঠককে নিয়ে যান একটি জনগোষ্ঠীর হৃদয় ও আত্মার গভীরে, যাদের অহংকার ও আদর্শ নিয়ত অস্তিত্বের সংগ্রামের সঙ্গে দ্বন্দ্বে লিপ্ত। এই সংগ্রামমুখর জীবনের আলেখ্যই গল্পগুলোকে স্থান-কাল ছাপিয়ে সবার গল্প করে তুলেছে। 

পছন্দের তালিকায় রাখুন

বইয়ের বিবরণ

যুদ্ধের মেয়েরা ও অন্যান্য গল্প  বইয়ের গল্পগুলো লেখা হয়েছে ১৯৫২-৭২ সময়পরিসরে। এর মধ্যে দুটি—‘বিয়ে একটি ব্যক্তিগত ব্যাপার’ (১৯৫২) এবং ‘মৃত মানুষের পথ’ (১৯৫৩)—চিনুয়া আচেবের ছাত্রাবস্থায় লেখা, যা পরে তিনি কিছু ‘ঘষা-মাজা’ করেন।  উপন্যাসে আচেবে মূলত উপনিবেশবাদের সঙ্গে স্থানীয় সনাতন জীবনধারার সংঘর্ষের ছবি এঁকেছেন; ছোটগল্পে উপজীব্য করেছেন প্রাত্যহিক জীবনের ক্ষুদ্র অথচ মৌল প্রশ্নগুলোকে, মূল্যবোধ আর সংস্কারের দ্বন্দ্বকে, রাজনীতিক আর বুদ্ধিজীবীদের শঠতাকে। একটি নির্দিষ্ট স্থানীয় ঘটনাকে নানাভাবে নিরীক্ষণ করা হয়েছে ঘটনাটির অন্তর্নিহিত সর্বজনীন ও বহুমাত্রিক তাৎপর্যের সন্ধান না পাওয়া অবধি। এসব গল্পের বিষয়, চরিত্র বা ঘটনার সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী বাংলাদেশি জনজীবনের সাদৃশ্য লক্ষ করা অসম্ভব নয়। 

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

চিনুয়া আচেবে

জন্ম ১৬ নভেম্বর ১৯৩০, নাইজেরিয়ার ওগিদিতে; মৃত্যু ২১ মার্চ ২০১৩, যুক্তরাষ্ট্রের বস্টন শহরে। নাইজেরিয়ার ইগবো গোত্রের মানুষ। প্রথম উপন্যাস থিংস ফল অ্যাপার্ট (১৯৫৯) লিখে বিশ্বজোড়া খ্যাতি অর্জন করেন। এরপর প্রকাশিত হয় একটি কিশোর উপন্যাসসহ পাঁচটি উপন্যাস, বেশ কিছু কবিতা, একটি ছোটগল্পসংগ্রহ ও একটি প্রবন্ধসংগ্রহ। ২০০৭ সালে তিনি মান বুকার আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ করেন। উল্লেখযোগ্য সৃষ্টিকর্মের মধ্যে রয়েছে: উপন্যাস সব এলোমেলো হয়ে যায়, আর স্বস্তিতে নেই, দেবতার ধনুর্বাণ ; গল্পগ্রন্থ যুদ্ধের মেয়েরা, চিকে ও নদী।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন