তারিখ-ই-বঙ্গালা-ই মহবত জঙ্গি

লেখক: আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া (অনুবাদক)

বিষয়: বিবিধ

৪৪৫.৫০ টাকা ১৯% ছাড় ৫৫০.০০ টাকা

এ বইয়ে বাংলার নবাবি আমলের এমন সব বর্ণনা আছে, যা সমসাময়িক অন্য কোনো গ্রন্েথ পাওয়া যায় না। লেখক ইউসুফ আলি খান ছিলেন বর্ণিত বেশির ভাগ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী। নবাব আলিবর্দি খানের প্রথম জীবন, তাঁর পরিবারের বিভিন্ন সদস্য ও ব্যক্তিগত অনুচরদের সম্পর্কে বর্ণনা দিয়েছেন তিনি এ বইয়ে। সেই সঙ্গে রয়েছে মারাঠাদের সঙ্গে আলিবর্দির যুগব্যাপী সংঘাত, সিরাজ-উদ-দৌলার সিংহাসন লাভ, পলাশীর যুদ্ধ ও সিরাজ-উদ-দৌলার মৃত্যুর বিবরণও। পরবর্তীকালে ফারসি ভাষায় লেখা নবাবি আমলের অনেক ইতিহাসগ্রন্েথর তথ্য আসলে এ বইটি থেকেই নেওয়া হয়েছে। 

পছন্দের তালিকায় রাখুন

বইয়ের বিবরণ

১৭৬৩-৬৪ খ্িরষ্টাব্দে রচিত এ গ্রন্েথ নবাব আলিবর্দি খানের প্রথম জীবন, সিংহাসন লাভ, তাঁর পরিবারের বিভিন্ন সদস্য ও ব্যক্তিগত অনুচরদের সম্পর্কে বর্ণনা রয়েছে। মারাঠাদের সঙ্গে নবাব আলিবর্দির ১২ বছরের সংঘাত, সিরাজ-উদ-দৌলার সিংহাসনে আরোহণ, পলাশীর যুদ্ধ ও সিরাজ-উদ-দৌলার মৃত্যুর বিস্তারিত বিবরণও আছে বইটিতে। এ গ্রন্েথ বর্ণিত অনেক ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন লেখক ইউসুফ আলি খান। ১৭২০ খ্িরষ্টাব্দের কাছাকাছি সময়ে তাঁর জন্ম। তাঁর পিতা গোলাম আলি খান ছিলেন আলিবর্দি খানের অন্তরঙ্গ বন্ধু, সহচর ও বিশ্বস্ত সেনাপতি। বহু যুদ্ধাভিযানে তিনি ছিলেন নবাবের সঙ্গী। পণ্ডিত ও লেখক হিসেবেও তাঁর সুখ্যাতি ছিল। তারিখ-ই-বঙ্গালা-ই-মহাবত জঙি লেখকের খুবই পরিচিত একটি বই। তাঁর এ গ্রন্েথ সমসাময়িক ঘটনা সম্পর্কে এমন সব বর্ণনা আছে, যা সমসাময়িক অন্য কোনো গ্রন্েথ পাওয়া যায় না। প্রামাণ্য ইতিহাস হিসেবে বইটির মূল্য অপরিসীম। 

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া

জন্ম ১৯১৮ খ্রিস্টাব্দে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দরিকান্দি গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে এমএ। ব্রিটিশ আমলের শেষ সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার মাধ্যমে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট হন। বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়াবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে অবসর নেন ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দে । বহুভাষাবিদ। প্রত্নতত্ত্ব, ইতিহাস, নৃতত্ত্ব, মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্য ইত্যাদি জ্ঞানবিদ্যার নানা ক্ষেত্রে ছিল তাঁর স্বচ্ছন্দ বিচরণ। প্রথমা প্রকাশন থেকে বেরিয়েছে তাঁর গবেষণাগ্রন্থ নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা ও অনূদিত গ্রন্থ করম আলি খানের মোজাফ্ফরনামা। এ ছাড়া বাংলাদেশের প্রত্নসম্পদ, বাংলাদেশের প্রাচীন কীর্তি (২ খণ্ড), বাংলা সাহিত্যে গাজী-কালু ও চম্পাবতী উপাখ্যান, বরেন্দ্র অঞ্চলের ইতিহাস ইত্যাদি তাঁর উল্লেখযোগ্য বই। ফারসি ভাষা থেকে বাংলায় অনুবাদ করেছেন বিখ্যাত সিয়ার-উল-মুতাখখিরিন ও তবকাত-ই-নাসিরি। পেয়েছেন বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও একুশে পদক। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন