নির্বাচিত বেগম: অর্ধশতাব্দীর সমাজচিত্র ১৯৪৭-২০০০ (১-৩ খণ্ড)

লেখক: মালেকা বেগম

বিষয়: সমাজ, ইতিহাস ও সংস্কৃতি

২,৫৫০.০০ টাকা ১৫% ছাড় ৩,০০০.০০ টাকা

বেগম পত্রিকার যে-চেহারা বর্তমান সংকলনে মালেকা বেগম তুলে ধরেছেন, তা রীতিমতো বিস্ময়কর। দেখা যাচ্ছে, বেগম খণ্ড ইতিহাসের প্রকাণ্ড আকর। পঞ্চাশ বছর বা তার কিছু বেশিকাল ধরে বাংলাদেশে নারীসমাজের যে-ধীর অগ্রগতি হয়েছে, তার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ ধারণ করে রেখেছে এই পত্রিকা। আসলে, প্রতিদিন সংবাদপত্র পড়ে যখন আমরা তা ফেলে রাখি কিংবা সাময়িকপত্রের পাতা উলটে যাই, তখন অনেক সময়েই আমরা টের পাই না যে, সেসবের মধ্যে রচিত হচ্ছে প্রতিদিনের ইতিহাস, আর আমরা, পাঠকরা, হচ্ছি সেই নির্মীয়মাণ ইতিহাসের রীতিমতো সাক্ষী। অনেককাল পরে, আমাদের স্মৃতি যখন অস্পষ্ট হয়ে ওঠে, তখন যদি কেউ সেই পত্রিকার সংকলন তুলে ধরেন, মনে হয়, এমনই হয়েছিল নাকি— তখন তো আমি ছিলাম এরই আশেপাশে।
—আনিসুজ্জামান

সংগ্রহে নেই পছন্দের তালিকায় রাখুন

বইয়ের বিবরণ

৫০ বছর ধরে প্রকাশিত সুপরিচিত ‘বেগম’ পত্রিকার নির্বাচিত প্রবন্ধ সংকলন নির্বাচিত বেগম: অর্ধশতাব্দীর সমাজচিত্র ১৯৪৭-২০০০ তিন খণ্ডে প্রকাশিত হলো।

১৯৫০ থেকে সাপ্তাহিক ‘বেগম’ পত্রিকা কলকাতায় প্রকাশিত হতো। এই পত্রিকার লক্ষ্য ছিল বাঙালি মুসলিম নারীদের কাছে পৌঁছানো—তার চেয়ে বড় পরিসরে যদি যায়, তা হবে উপরি পাওনা। আশা করা গিয়েছিল, যাদের উদ্দেশে পত্রিকা প্রকাশ করা, এটি হয়ে উঠবে তাদের কণ্ঠস্বর। শিক্ষিত পুরুষ ধরে নিয়েছিল, এটি মেয়েদের রান্না-বান্না, সীবনকর্ম ও শিশুপালনের জ্ঞানদায়ক; যেসব মেয়ের লেখা অন্য কোথাও প্রকাশ পায় না, তাদের শখের সাহিত্যচর্চার ক্ষেত্র; অথবা যেসব পুরুষ নিজের নামে লিখতে চান না, স্ত্রীর নামে লেখা ছাপিয়ে সন্তোষলাভ করতে ভালোবাসেন, এটি তাঁদের জন্যে।

এই সংকলন শুরু হয়েছে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী সংগ্রামে নারীর অংশগ্রহণের কথা দিয়ে বাঙালি-অবাঙালি, হিন্দু-মুসলমান-নির্বিশেষে। বস্তুত সেই সংগ্রামে বাঙালি মুসলিম নারীর ভূমিকা খুব সামান্যই ছিল। তার কারণ শিক্ষা-দীক্ষায় ও সামাজিক-রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তার পশ্চাৎপদতা। নানা সংস্কারের জাল ও বাধা-নিষেধের শৃঙ্খল সে ছিন্ন করতে শুরু করেছে মাত্র। এক অর্থে, সেই জাল ভেদ করার এবং সেই শিকল বিকল করার কাহিনীই বর্ণিত হয়েছে এই সংকলনের পৃষ্ঠাগুলোয়।

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

মালেকা বেগম

জন্ম ১৯৪৪ সালে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। পরে সমাজবিজ্ঞানেও স্নাতকোত্তর করেছেন। পিএইচডি (২০০৪) করেছেন একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন স্টাডিজ সেন্টার থেকে পোস্ট ডক্টরাল (২০১১)। ষাটের দশকের শুরু থেকে নব্বইয়ের দশক পর্যন্ত ছাত্র ও নারী আন্দোলনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদিকা। মহীয়সী নারী কবি সুফিয়া কামালের সাহচর্যধন্য এই নারীনেত্রী মুক্তিযুদ্ধেরও সক্রিয় সংগঠক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জেন্ডার অ্যান্ড উইমেন স্টাডিজ বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক। বর্তমানে সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির সোশিওলজি অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ও প্রধান। প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ২৮।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন