সমাজ সংস্কৃতি রাজনীতি : দশটি বক্তৃতা

লেখক: আনিসুজ্জামান

বিষয়: সাক্ষাৎকার, সমাজ, ইতিহাস ও সংস্কৃতি

২৪০.০০ টাকা ২০% ছাড় ৩০০.০০ টাকা

অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের দশটি লিখিত বক্তৃতার সংকলন এ বই। বিভিন্ন সময়ে স্মারক বক্তৃতা হিসেবে তিনি এ প্রবন্ধগুলো পাঠ করেন। লেখকের যুক্তিনিষ্ঠা, বিচারশীল মন, গভীর সমাজ-মনস্কতা ও প্রখর ইতিহাসবোধের পরিচয় পাওয়া যাবে গ্রন্থভুক্ত রচনাগুলোতে।

পছন্দের তালিকায় রাখুন

বইয়ের বিবরণ

অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের দশটি লিখিত বক্তৃতার সংকলন এ বই। বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের আমন্ত্রণে বিভিন্ন সময়ে স্মারক বক্তৃতা হিসেবে তিনি এ প্রবন্ধগুলো পাঠ করেন। কখনো নির্দিষ্ট বিষয় আবার কখনো কোনো ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে তাঁর আলোচনা। অষ্টাদশ শতাব্দী অবধি বাংলার মুসলমানের পরিচয়-বৈচিত্র্য, ইব্রাহিম খাঁর স্মৃতিকথায় বিশ শতকের বাঙালি মুসলমান সমাজের চিত্র কিংবা বাংলাদেশের সংবিধানের বাংলা ভাষ্য যেমন তাঁর বক্তৃতার বিষয় হয়েছে; তেমনি মহামহোপাধ্যায় হরপ্রসাদ শাস্ত্রী, ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্‌, মিসেস এম রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাজউদ্দীন আহমদ, অধ্যাপক খান সারওয়ার মুরশিদ, শিল্পী মুর্তজা বশীর— এঁদের জীবন ও অবদান নিয়েও তিনি আলোচনা করেছেন। বাদ যায়নি বর্তমান সময় ও সমাজের সংকটচিত্রও। ড. আনিসুজ্জামানের অন্যান্য রচনার মতো এ বক্তৃতাগুলোতেও তাঁর দৃঢ় তথ্যনিষ্ঠা, যুক্তিশীল বিচারপদ্ধতি, নিরাসক্ত মূল্যায়ন এবং প্রখর ইতিহাসবোধের পরিচয় পাওয়া যায়। সেই সঙ্গে রচনাগুলোকে যা উপাদেয় করে তুলেছে তা হলো লেখকের ভাষার স্বচ্ছতা ও পরিমিতিবোধ।

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

আনিসুজ্জামান

আনিসুজ্জামানের জন্ম ১৯৩৭ সালে, কলকাতায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় বি এ অনার্স, এম এ এবং পিএইচ ডি ডিগ্রি লাভ করেছেন। গবেষণা করেছেন শিকাগো ও লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে, যুক্ত ছিলেন জাতিসংঘ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা-প্রকল্পে। শিক্ষকতা করেছেন ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। প্যারিস, নর্থ ক্যারোলাইনা স্টেট ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিজিটিং ফেলো ছিলেন, বিশ্বভারতীতে ভিজিটিং প্রফেসর। সাহিত্য ও সমাজ সম্পর্কে ইংরেজি ও বাংলায় লিখিত ও সম্পাদিত তাঁর গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে ঢাকা, কলকাতা, লন্ডন ও টোকিও থেকে। বাংলা একাডেমী পুরস্কার ও রাষ্ট্রীয় সম্মান একুশে পদক পেয়েছেন; পেয়েছেন আনন্দ পুরস্কার, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সরোজিনী বসু পদক, এশিয়াটিক সোসাইটির পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর স্মারক ফলক ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জন্মশতবার্ষিক স্মারক ফলক এবং রবীন্দ্রভারতীর সাম্মানিক ডি লিট্। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ছিলেন। এখন বাংলা একাডেমীর সভাপতি।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন