বাংলাদেশ ও ইসলাম আত্মপরিচয়ের ডিসকোর্স

লেখক: মুসা আল হাফিজ

বিষয়: ইতিহাস ও ঐতিহ্য, বইমেলা ২০২২

২৮৭.০০ টাকা ১৮% ছাড় ৩৫০.০০ টাকা

বইয়ের বিবরণ

গ্রিক সম্রাট আলেকজান্ডার (খ্রি.পূ. ৩৫৬—৩২৩) দার্শনিক ডায়োজেনিসকে দেখতে গেলেন। তিনি তখন নিজের আস্তানায় বসে রোদ পোহাচ্ছিলেন একা। আলেকজান্ডার কাছে গিয়ে তাকে বললেন, ডায়োজেনিস! আমি আপনার জন্য কীর করতে পারি? তখনকার দুনিয়ার সেরা নৃপতি এসেছেন সহযোগিতা করতে। ডায়োজেনিস তার কাছে চাইলেন বটে সহযোগিতা! বললেন, ‘তুমি আমার সামনে থেকে সরে দাঁড়াও! কারণ তুমি সামনে দাঁড়িয়ে আছো বলে আমার আলোকস্নান বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। ডায়োজেনিসদের দরকার রোদ, আলো, একে আড়াল করে যদি আলেকজান্ডারও দাঁড়ান, তারা বলবেন, সরো তো বাপু!’ যেকোনো সুযোগ—সহযোগিতার প্রস্তাবকে তারা এর বিনিময়ে পাত্তাই দেন না। এই যে স্বচ্ছ আলো, সেটা ব্যক্তি মানুষের যতোটা দরকার, জাতীয় মনন ও দৃষ্টির জন্য আরো বেশি দরকার। কিন্তু জাতীয় মনন ও দৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় আলোকলাভের পথে অনেক সময় দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে বিবিধ বয়ান ও ভাবধারা। সেই সব বয়ান ও ভাবধারা যদি ইতিহাস ও আত্মপরিচয়ের পথের মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকে, তাহলে সেটা শুধু অস্বাস্থ্যকর নয়, বিপজ্জনক। কারণ এতে জাতিসত্তার আত্মপরিচয়ের উপর তৈরি হয়। অস্পষ্টতার প্রলেপ। অনেক সময় সেটা কেবল অস্পষ্টতায় থেমে থাকে না, অন্ধকারে পরিণত হয়। এদেশে, আমাদের আত্মপরিচয় এমন অস্পষ্টতা বা অন্ধকারের কবলে পড়েনি, তা বলার সযোগ নেই। সেই আবরণ ক্ষমতা সম্পর্কের পাটাতনে দাঁড়িয়ে রাজকীয় অবয়বে আমাদের পরিচয়ের ভাষ্য নির্ধারণ করে আমাদের ‘সহায়তা’ করতে চায়। ‘বাংলাদেশ ও ইসলাম : আত্মপরিচয়ের ডিসকোর্স’ আরোপিত কোনো রাজকীয় ভার্ষ দিয়ে নিজের পরিচয় নির্মাণের সহায়তা নিতে রাজী নয়। বইটি বরং স্বচ্ছ আলোর অবগাহনে সচেষ্ট। এজন্যে সামনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা অধিপতি বুদ্ধিবৃত্তির ভাষা ও ভাষ্যকে হেলাচ্ছলে বইটি বলে, ‘সরো তা বাপু।’ আমার আলোর দরকার।’ এ বই ইতিহাসের গভীর থেকে আমাদের আত্মপরিচয়ে একটি প্রচেষ্টা। যা, ইতোপূর্বে হাজির করা অধিপতি বয়ান থেকে আলাদা। সন্ধানের বইটিতে বিদ্যমান প্রবন্ধগুলো বিভিন্ন সময়ের রচনা। ফলে পুনরোক্তি থাকতে পারে কোথাও। সবগুলো প্রবন্ধ শেষ অবধি সরাসরি সত্যালোকে নিজেকে পুড়াতে চেয়েছে। এরই মধ্য দিয়ে পেয়েছে আত্মপরিচয়ের সেই ডিসকোর্স, যাকে আমরা বহন করছি মনে, রক্তে, সত্তায়!

  • শিরোনাম বাংলাদেশ ও ইসলাম আত্মপরিচয়ের ডিসকোর্স
  • লেখক মুসা আল হাফিজ
  • প্রকাশক শোভা প্রকাশ
  • আইএসবিএন 9789849473190
  • প্রকাশের সাল 2021
  • মুদ্রণ 1st
  • বাঁধাই Hardcover
  • পৃষ্ঠা সংখ্যা 144
  • দেশ বাংলাদেশ
  • ভাষা বাংলা

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

মুসা আল হাফিজ

তরুণ কবি, বিশিষ্ট গবেষক, বাগ্মী ও আলেম মুসা আল হাফিজ। ১৯৮৪ সালের ৫ অক্টোবর সিলেট জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের মাখর-গাঁও গ্রামে তাঁর জন্ম। ১৯৯৫ সালে, ১১ বছর বয়সে কুরআন মজিদের হিফজ সম্পন্ন করেন। ২০০৭ সালে কৃতীত্বের সাথে তাকমিল ফিল হাদীস (মাস্টার্স সমমান) সম্পন্ন করেন। জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ তরুণ আলেম প্রতিভা-২০০৮ এ সম্মানীত হন। ২০০৯ সালে কর্মজীবনের শুরু ঐতিহ্যবাহী বিশ্বনাথ জামেয়া মাদানিয়ায় শিক্ষকতা এবং মাসিক আল ফারুকের উপদেষ্টা সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণের মধ্য দিয়ে। ২০১৬ সালে উচ্চতর ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামেয়াতুল খায়র আল ইসলামীয়া সিলেটে বিভাগীয় প্রধান হিসেবে যোগদান করেন। ২০১৯ সালে ঢাকায়, যাত্রাবাড়ীতে প্রতিষ্ঠা করেন ইসলামী দা‘ওয়াহ ও গবেষণা কেন্দ্র মা‘হাদুল ফিকরি ওয়াদদিরাসাতিল ইসলামিয়া। বর্তমানে ইসলামিক হিস্ট্রি অ্যান্ড কালচার অলিম্পিয়াড বাংলাদেশের চেয়ারম্যানের দায়িত্বপালন করছেন। ২০১১ সালে হয় তার কবিতা নিয়ে প্রকাশিত হয় কবি-সমালোচক মুকুল চৌধুরীর সনাক্তধর্মী আলোচনা ‘মুসা আল হাফিজ: কবিতার নতুন কণ্ঠস্বর’। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. রিজাউল ইসলাম তার সাহিত্যকর্ম নিয়ে লিখেন গবেষণাগ্রন্থ- মুসা আল হাফিজের মননবিশ্ব (২০১৮)। তরুণ কবি এম আসাদ চৌধুরীর সম্পাদনায় ২০১৯ সালে প্রকাশিত হয় তার সাহিত্যকর্ম নিয়ে বিশজন আলোচকের পর্যালোচনাগ্রন্থ ‘মননের কবি, বৈদগ্ধের দৃষ্টিতে’। বিভিন্ন বিষয়ে তিনি ৪০ টি বই লিখেছেন।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন