ওজের জাদুকর

লেখক: লিম্যান ফ্রাঙ্ক বোম

বিষয়:

১৯২.০০ টাকা ২০% ছাড় ২৪০.০০ টাকা

ঘরের মাঝখানে সবুজ পাথরের সিংহাসনটি মূল্যবান রত্নে খচিত। চেয়ারের ঠিক মাঝখানে রয়েছে মস্ত বড় একটি মাথা। সে মাথার কোনো দেহ নেই, কোনো হাত-পা নেই। মাথায় চুলও নেই। আছে শুধু নাক, মুখ, চোখ। মাথাটি প্রকাণ্ড।

ভয়ে আর বিস্ময়ে মাথাটির দিকে ডরোথি তাকিয়ে ছিল। হঠাৎ মাথার চোখ দুটি যেন নড়ে উঠল, তীক্ষ্ণ দৃষ্টি ওর ওপর স্থির হয়ে রইল। সে দৃষ্টি হাড়ে কাঁপুনি ধরিয়ে দেয়। একসময় হঠাৎ মাথাটা নড়ে উঠল আর সঙ্গে সঙ্গে একটি কণ্ঠস্বর শুনতে পেল। কণ্ঠস্বর বলল, ‘আমি ওজ। মহান এবং ভয়ানক। তুমি কে, কেন এসেছ?’ 

পছন্দের তালিকায় রাখুন

বইয়ের বিবরণ

আমেরিকার ক্যানসাসের কথা। ডরোথি থাকত চাচা-চাচির সঙ্গে। ওর মা-বাবা ছিল না। ওর সঙ্গী টোটো, ওর প্রিয় কুকুর। একদিন চাচা-চাচি ছিল ঘরের বাইরে। সেদিন ভয়াবহ ঝড় এল। ঘর এবং সেই সঙ্গে ডরোথি আর টোটোকে উড়িয়ে নিয়ে গেল মানচকিনদের দেশে। মানচকিনরা বলল, তুমি এক ডাইনিকে মেরে আমাদের মুক্ত করেছ। আসলে ঝড়ে উড়িয়ে আনা ঘরের নিচে পড়ে মারা গেছে ওই ডাইনি। কথা হলো, ডরোথি এখন কীভাবে ফিরবে। ওরা বলল, এই পথ ধরে তুমি পান্নানগরে ওজের জাদুকরের কাছে যাও। যেতে যেতে পথে দেখা হলো কাকতাড়ুয়ার সঙ্গে। সে বলল, আমাকেও নিয়ে যাও জাদুকরের কাছে। আমার মাথায় সব খড়, আমার একটু মগজ চাই। যেতে যেতে দেখা হলো টিনের তৈরি এক কাঠুরিয়ার সঙ্গে। সে-ও যাবে ওজের জাদুকরের কাছে, তার দরকার একটা হৃদয়। দেখা হলো এক ভিতু সিংহের সঙ্গে। সে-ও যাবে সঙ্গে। তার দরকার একটু সাহস। কত পথ পেরিয়ে কত ঘাট মাড়িয়ে যেতে হবে জাদুকরের কাছে। সে বলবে, আগে ডাইনিকে মেরে এসো। কত যে বিপদ তাতে। ডরোথি এরপর কী করবে? পারবে ডাইনিকে মারতে? ফিরতে পারবে তার প্রিয় চাচা-চাচির কাছে? 

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
০(০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন