বইয়ের বিবরণ

আলোর উৎস কিংবা ডিভাইসের কারণে বইয়ের প্রকৃত রং কিংবা পরিধি ভিন্ন হতে পারে।

সৈয়দ শামসুল হক

জন্ম ২৭ ডিসেম্বর ১৯৩৫, কুড়িগ্রাম। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, কাব্যনাট্য ও প্রবন্ধ মিলে তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থ প্রায় দুই শ। আদমজী সাহিত্য পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, নাসিরউদ্দীন স্বর্ণপদক, জেবুন্নেসা-মাহবুবউল্লাহ্‌ স্বর্ণপদক, আলাওল সাহিত্য পুরস্কার, রাষ্ট্রীয় একুশে পদক, স্বাধীনতা পদকসহ নানা পুরস্কার পেয়েছেন। মৃত্যু ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬।

এই লেখকের আরও বই
এই বিষয়ে আরও বই
আলোচনা ও রেটিং
৫(১)
  • (১)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
  • (০)
আলোচনা/মন্তব্য লিখুন :

আলোচনা/মন্তব্যের জন্য লগ ইন করুন

আহমেদ আতিফ আবরার

৩১ Jul, ২০২১ - ১১:২৫ AM

প্রথম আলোর ইদসংখ্যায় পড়েছিলাম। প্রথম আলোও দেখি আনন্দবাজারের মতন পূজাবার্ষিকীর উপন্যাস গ্রন্থবদ্ধ করে ফেলছে! তবে যার পদাঙ্ক-অনুসরণ সুফলপ্রদ, তা তো অনুসরণ করাই উচিত; বিশেষত পূজাবার্ষিকী/ইদসংখ্যার আয়ুষ্কাল যেহেতু দুই কি তিন বছর, তারপর “হ্যাঁ ভাই, আপনাদের পুরানো ইদসংখ্যাগুলো আছে?” ”ছিল তো কিছু, কিছু বিক্রি হয়ে গেছে, আর কিছু কাগজওয়ালার তত্ত্বাবধানে গেছে।” হারুকি মুরাকামির উপন্যাসগুলোয় পড়েছি নাকি সংগীতের প্রভাব বিস্তর; তবে সৈয়দ হকের এই মরণোত্তর-প্রকাশিত উপন্যাসে আমি সংগীতময় এক উপন্যাস ইতোমধ্যে উপভোগ করে ফেলেছি। পুরান ঢাকায় সুদূর উত্তর ভারতের রেখতা-সংস্কৃতির গজলের ঘ্রাণ এতটা স্বপ্নময়, এতটা তরতাজা, যে মনেই হয় না তা পাঁচ যুগ আগে লিখিত। আছে বার্মার সঙ্গে বাংলার সংযোগের ইশারা। অনুপম হায়াৎকে হাজারো শুকরিয়া এ সাহিত্যমানতাসা খুঁজে বের করার জন্যে।