আগষ্ট আবছায়া



BDT600.00
BDT800.00
Save 25%

২০১৫ সালের আগস্ট মাসে উপন্যাসের নায়ক এক মাথা-ঘোরানো সফরে নামেন মানব ইতিহাসে বর্বরতার যত অলিগলি রয়েছে, তার অনেকগুলো ধরে। তিনি বুঝতে চান কী সম্পর্ক আছে ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে দূর ইতিহাসের নিয়ানডারথাল মানুষদের ঝাড়ে-বংশে নিমূ‌র্ল হওয়ার? রাশিয়ান দুই মহান কবির মর্মান্তিক মৃত্যু কী সূত্রে গাঁথা শেখ কামালের খুনের সঙ্গে? আর ‘সময়’ ও ‘স্মৃতি’ নিয়ে এত পড়াশোনা করেও কেন তিনি বারবার ব্যর্থ হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড নিয়ে তাঁর প্রবল অবসেশনের তলটা খুঁজে পেতে? কেন এ পৃথিবীকে এ রকম হতেই হলো, যেখানে সহিংসতাই সভ্যতার নিগূঢ়ার্থ? কে বানাল এই গর্বোদ্ধত মহিষ-নিয়ন্ত্রিত পাষাণ পৃথিবী, যেখানে মানুষের বিশ্বাসগুলোর মধ্যে আছে শুধু কাব্যিকতা, লড়াইগুলোয় হাস্যরস, আর সব লড়াইয়ের উপসংহারে দুর্বিষহ এক মৃত্যুময়তা?  

Quantity


  • Security policy (edit with Customer reassurance module) Security policy (edit with Customer reassurance module)
  • Delivery policy (edit with Customer reassurance module) Delivery policy (edit with Customer reassurance module)
  • Return policy (edit with Customer reassurance module) Return policy (edit with Customer reassurance module)

‘এই উপন্যাসের কেন্দ্রে রয়েছে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যার নৃশংস ঘটনা। অনেক চরিত্র ও অসংখ্য ঘটনার মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়ে উপন্যাসটি জীবন ও মৃত্যু সম্পর্কে অনেক প্রশ্নের সম্মুখে পাঠককে দাঁড় করায়। ভাষা ও ভঙ্গিও বিষয়ের মতোই অভিনব।’

—আনিসুজ্জামান, গবেষক ও প্রাবন্ধিক

২০১৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে ঘটে যাওয়া এক রহস্যময় ও পৈশাচিক ঘটনার গোড়ায় পৌঁছানোর অভীপ্সা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের অধ্যাপক, এ উপন্যাসের নায়ক, তাঁর কাফকা অনুবাদের কাজ ফেলে মাঠে নামেন দুই নায়িকাকে সঙ্গে করে। পৃথিবীর বিনাশ ঘটাতে চাওয়া আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রগুলোর ভেতরে উঁকি দিয়ে তাঁরা বুঝতে চান এই গ্রহে জীবন ও মৃত্যু, শুভ ও অশুভ, বিশ্বাস রক্ষা ও বিশ্বাসঘাতকতার মধ্যে আর কোনো ফারাক নেই কেন? নায়ক ধরে ফেলেন যে ১৯৭৫-এর আগস্ট হত্যাকাণ্ড যারা ঘটিয়েছিল, তারাই আছে নেপালে সাম্প্রতিকতম ভূমিকম্প সংঘটনের পেছনে, আর মানব ইতিহাসে মোট ৯ কোটি ২৫ লাখ লোকের মৃত্যুর পেছনে আছে পনেরোই আগস্ট তারিখটা—স্কটল্যান্ডের রাজা ম্যাকবেথের মৃত্যু থেকে নিয়ে জার্মান প্রেসিডেন্ট হিনডেনবার্গের নাৎসি বাহিনীকে আশীর্বাদ জানানোর তারিখ ওই একই ১৫ আগস্ট। ব্রহ্মাণ্ডের কেন্দ্রে গেড়ে বসা ধ্বংসাত্মক শক্তিকে মেপে নিয়ে উপন্যাসের নায়ক দেখেন, যতবারই তিনি জীবনের অর্থ খুঁজে পান, ততবারই বদলে দেওয়া হয় সেই অর্থ। আর ’৭৫-এর ১৬ আগস্টে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মৃতদেহের জানাজা ও দাফনকে কেন্দ্র করে ঘনিয়ে ওঠা ‘জনতার বিদ্রোহ’ তাঁকে দেখিয়ে দেয় ক্ষমতা কীভাবে সাজায় সমাজের মূল কাঠামোকে এবং মৃত্যু কীভাবে সবকিছুর ব্যাপারে ভ্রুক্ষেপহীন। 

Reviews

উপন্যাসে উচ্চতর বোধের জগৎ

| 27/10/2019

প্রকাশের পরপরই মাসরুর আরেফিনের উপন্যাস আগস্ট আবছায়াকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট আলোচনা শুরু হয় পাঠকসমাজে। বেশ বড়সড় বই। সাধারণত এত মোটা বই পড়ার উদ্যোগ আমি নিই না। তারপরও লেখকটি মাসরুর আরেফিন বলেই, তাঁর ২০০১-এর কাব্যগ্রন্থ ঈশ্বরদী, মেয়র ও মিউলের গল্প আমাকে আলোড়িত করেছিল বলেই আমি সবিস্ময়ে বইটি হাতে নিয়ে উল্টেপাল্টে দেখেছি। আমাদের সময়ে জন্ম নেওয়া এই তুখোড় ঘোড়সওয়ারের পথরেখা আমি গভীরভাবে অনুসরণ করতে চাই। পড়তে শুরু করে আমি এর ঘুম হারাম করা ভাষার তীক্ষ্ণ, গভীর, মনোবিশ্লেষী ও প্রাণবন্ত বর্ণনার ফাঁদে আটকা পড়ে যাই। আমার মতো শুধু বাংলা সাহিত্যের একজন আটপৌরে পাঠক এ বই পড়ার পর আপাদমস্তক কেঁপে উঠেছে। বাক্যের পর বাক্যে শিহরণ তুলে এগিয়ে চলে তাঁর বর্ণনা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে কেন্দ্রে রেখে জীবন-মৃত্যু-নিয়তি-ক্ষমতাবিষয়ক নানা রাজনৈতিক ও দার্শনিক অভিব্যক্তির মধ্য দিয়ে পৃথিবীর আদি-অন্ত ভ্রমণ শেষে পাঠককে একটা সম্পূর্ণের—বৃহতের সামনে দাঁড় করিয়ে দেয় এ উপন্যাস। উপন্যাসের নায়ক একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের অধ্যাপক ও লেখক। সে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ওপরে উপন্যাস লিখবে এবং কাফকা সমগ্রের দ্বিতীয় খণ্ডের অনুবাদের কাজ তার হাতে। এগুলোর মধ্যেই সে তার জীবনের অর্থ খুঁজতে থাকে, তবে যতবারই সে অর্থ খুঁজে পায়, ততবারই বদলে দেওয়া হয় সেই অর্থ। কারা বদলে দেয় সেটা, এই প্রশ্নের উত্তর খোঁজাই মনে হয় পুরো আগস্ট আবছায়া। উপন্যাসের শুরুতেই কাফকার গল্প ‘দ্য গ্রেট ওয়াল অব চায়না’ থেকে এক নিষ্ঠুর ঘটনার উদ্ধৃতি মুহূর্তে পাঠককে টান দিয়ে নিয়ে যায় বাস্তবের এক ভয়ংকর পৃথিবীতে, যেখানে একদিকে সংঘটিত হচ্ছে রাষ্ট্রপতির হত্যা, অন্যদিকে তার রাজন্যবর্গ নির্বিকার। ১৫ আগস্টের ভয়াবহতা এ উপন্যাসের শেষের দিকে আসবে বলে প্রস্তুতি হিসেবে কি শুরুতেই লেখক মানবসভ্যতার পরতে পরতে বিদ্যমান থাকা সহিংসতা সম্পর্কে পাঠককে এভাবে সজাগ করে তুললেন? এরপর আসে মুম্বাই থেকে পুনে যাওয়ার পথের পাম বিচ ক্রিক রোডের গা-ছমছমে বর্ণনা। ট্যাক্সিচালক আইয়ারের মুখে আমরা শুনি ইন্দিরা গান্ধী হত্যাকাণ্ডের গল্প। এর মধ্যে হঠাৎ হেলুসিনেশন হলো উপন্যাসের কথকের, পাম বিচ রোডের এক কফিশপের সামনে আকস্মিকভাবে হাজির এক তরুণ, তার হাতে দুই শ বছরের পুরোনো দীর্ঘ ব্যারেলের এক রিভলবার। এদিকে আমরা দেখলাম ডুয়েল লড়তে গিয়ে কবি আলেকজান্ডার পুশকিনের মৃত্যু। দেখলাম আরেক ডুয়েলে কবি মিখাইল লেরমন্তভের মৃত্যু। দেখলাম বন্ধুপত্নী লুনার বাবাকে কীভাবে তারই চা-বাগানের শ্রমিকরা খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করল।গোটা উপন্যাস এই সব খুন, রক্ত, ক্ষমতার প্রকাশ ও অস্ত্রের ঝনঝনানির মধ্য দিয়ে এগোতে থাকে। তাহলে মাসরুর কি বলতে চাইছেন পৃথিবীর কেন্দ্রে আছে যে ধ্বংসকামী শক্তি, তা–ই দর্পভরে পৃথিবীকে এগিয়ে নিয়ে চলেছে? উপন্যাসটি সবচেয়ে ভয়াবহ যে প্রশ্নের সামনে আমাকে দাঁড় করিয়েছে তা এটাই: পৃথিবীর চালিকা শক্তি কি ক্ষমতা ও বল? ভালোবাসা তাহলে কী? মৃত্যু ও ক্ষমতার পাশাপাশি উপন্যাসের একটা বড় জায়গাজুড়ে রয়েছে প্রকৃতিচেতনা। মৃত্যু ও ক্ষমতার একটানা বর্ণনাকে ভারসাম্য দিতেই কি উপন্যাসে এমন আত্মাজুড়ানো প্রকৃতির বর্ণনা নিয়ে এলেন লেখক? এই সব কিছুর ভেতর দিয়ে উপন্যাসের নায়ক আবার ফুর্তি করছে দু-দুজন লিরিক্যাল নায়িকা মেহেরনাজ ও সুরভি ছেত্রীর সঙ্গে, যেমন করে থাকে রহস্য উপন্যাসের নায়কেরা। তবে এ ত্রিভুজ প্রেমের মধ্যে না আছে কোনো প্রথাগত নৈতিকতা, না কোনো সত্যিকারের প্রেম। এটাই কি তবে উত্তর–আধুনিক যুগের মানুষের ভালোবাসার রূপ? আগস্ট আবছায়া ঘটনার সঙ্গে ঘটনার, ইতিহাসের, দর্শনের, সাহিত্যের, স্মৃতির মিল খোঁজার মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠা একটা উচ্চতর বোধের জগৎ। ফর্মের দিক থেকে একে একটা কোলাজচিত্র বলেও মনে হতে পারে। বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘটনাটি উপন্যাসের কেন্দ্রীয় ঘটনা হলেও মাসরুর যখন সময়ের অনেক ওপর থেকে ইতিহাসের বিস্তৃত পরিসরে ঘটনাগুলোকে দেখছেন, তখন মনে হয় বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘটনাটি যেন মানব ইতিহাসের নানা ষড়যন্ত্র ও জোর করে ক্ষমতা দখলে ঠাসা চিরায়ত যুদ্ধক্ষেত্রে আরেকটি যুদ্ধ; যেন ১৯৭৫-এর আগস্টের পৃথিবী তার নিষ্ঠুরতার ইতিহাসের আরেকটি চক্রই পূরণ করেছিল সে রাতে। আগস্ট এলেই সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যার নির্মম ঘটনাটি উপন্যাসের নায়কের মধ্যে ভর করে, তাকে অস্থির করে তোলে। সে আবিষ্কার করে, মানব ইতিহাসে মোট ৯ কোটি ২৫ লাখ লোকের মৃত্যুর পেছনে আছে ১৫ আগস্ট তারিখটি। স্কটল্যান্ডের রাজা ম্যাকবেথের মৃত্যু থেকে শুরু করে জার্মান প্রেসিডেন্ট হিনডেনবার্গের নাৎসি বাহিনীকে আশীর্বাদ জানানোর তারিখও ওই ১৫ আগস্ট। ইতিহাসের একেকটি ঘটনার সঙ্গে থাকে অন্য কোনো ঘটনার গভীর সম্পর্ক। দেখা যায়, সেই একই সম্পর্ক আছে দুটি বিরাট ঘটনার মধ্যে—২০১৫ সালের ১৫ আগস্টে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ঘটা এক কাল্পনিক ও পৈশাচিক ঘটনার সঙ্গে যোগ পাওয়া যায় ১৯৭৫-এর আগস্টের, কারণ দুটিরই কুশীলব একই ষড়যন্ত্রকারী, মূলত আধিপত্যবাদী শক্তি আমেরিকা। নায়িকা মেহেরনাজকে সঙ্গে নিয়ে উপন্যাসের নায়ক সেই ঘটনার মূলে পৌঁছে আবিষ্কার করে যে সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া নেপালের ভয়াবহ ভূমিকম্পের সঙ্গেও যোগসূত্র আছে এ সবকিছুর। আমরা এভাবে অবাক হয়ে দেখি, ব্রহ্মাণ্ডের কেন্দ্রে গেড়ে বসে এক ধ্বংসাত্মক শক্তি চালাচ্ছে সব এবং সমস্ত সৃষ্টির রহস্য যেন একটা বিরাট মহিষের মুখে গেজিয়ে ওঠা ফেনার চেয়ে বেশি কিছু নয়। এর ভাষা প্রসঙ্গে বলি যে বাংলা ভাষার এক বিস্ময়কর উৎসারণ ঘটেছে এ উপন্যাসে এবং এ শুধু গল্প বলা নয়, গল্পের সূত্র ধরে ধরে পৃথিবীর সাহিত্য-ইতিহাস-দর্শনের পরতে পরতে ঘুরে বেড়ানো। পড়তে পড়তে কখনো পাঠক জীবনের অর্থহীনতার মধ্যেও ডুবে যেতে পারেন। কেননা, উপন্যাসের মূল সুর বিষাদের। প্রতিটি চরিত্রের পরিণতি এখানে বিষাদ দিয়েই পূর্ণ হয়ে ওঠে। সেটা কি এই জন্য যে মানুষের জীবন মূলত ট্র্যাজিক? মাসরুর বলেন, জীবন আসলে ছোট্ট একটা উজ্জ্বল উপস্থিতি, যার সামনেও অন্ধকার এবং পেছনেও অন্ধকার (জন্মের আগের ও মৃত্যুর পরের অন্ধকার অর্থে)। পরিত্রাণহীন এই অন্ধকারই তাঁর উপন্যাসের বোধ হয় প্রধান থিম। বইটি পাঠককে ঘোরের মধ্যে রাখবে বহুদিন। পড়া শেষ করার পরেও এর চরিত্রেরা আপনার মনের নানা কোনায় ঘোরাফেরা করবে। এদের নাম আপনি জীবনে ভুলবেন না। কারণ, এ রকম কোনো চরিত্রের সঙ্গে বাংলা সাহিত্যে আগে আপনার কখনো দেখা হয়নি। প্রথম উপন্যাসেই মাসরুর আরেফিন বাংলা সাহিত্যের এক নবীন মহানায়কের আসন নিয়ে নিয়েছেন।

AUGUST ABCHAYA

| 24/04/2019

This is an International game of western genius. Which happened in Iraq, Libya & Afghanista. Still it has been continuing in Palestin, Syria, Lebanon & Yemen. In the third World, we have to think about HUMANITY. We were 50 years left/old after killings of Bangabandhu & others 4 leaders.